সোনাগাজীতে সাক্ষীর অভাবে তিন বছরেও শুরু হয়নি স্ত্রী হত্যা মামলার বিচার

 ফেনী প্রতিনিধি, ২২ অক্টোবর

ফেনীতে ৩ বছর ২ মাস পরও সাক্ষীর অপেক্ষায় আছে যৌতুকের জন্য স্ত্রী হত্যা মামলা। এ মামলার প্রধান আসামী গত মঙ্গলবার জামিনের আবেদন করলে আদালত জামিন নাঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, সোনাগাজী উপজেলার চর সাহাভিকারী গ্রামের আবদুস শুক্কুরের ছেলে মাইন উদ্দিন ২০১৭ সালের ২৪ জুলাই বিকেলে তার স্ত্রী খায়রুন নাহার পিনুকে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। এ ঘটনায় নিহতের বড় ভাই বেলায়েত হোসেন বাদী হয়ে একই বছরের ৫ আগস্ট ৭ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন।
মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই তাজুল ইসলাম নিহত খায়রুন নাহারের স্বামী মাইন উদ্দিন, দেলোয়ার হোসেন সাগর, জসিম উদ্দিন, ওয়াহিদেন নেছা, কাজল বেগম, লাকী আক্তার ও নুরজাহানকে অভিযুক্ত করে ২০১৮ সালের ১৮ জুলাই চার্জশীট প্রদান করেন। আদালত ১৬ সেপ্টেম্বর চার্জ গঠন করে। বাদীর না রাজির প্রেক্ষিতে জীবন আরা বেগমকে এ মামলায় যুক্ত করা হয়। ২০১৭ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর মামলার প্রধান আসামী মাইন উদ্দিন আদালতে আত্মসমর্পণ করে। বর্তমানে সে ৩ বছর হাজতবাস করার পর মঙ্গলবার আদালতে জামিনের আবেদন করে। আদালত জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।
পিপি হাফেজ আহমা¥দ জানান, নারী শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারক না থাকার কারণে মামলা বিচার কার্যক্রম বিলম্বিত হচ্ছে। শীঘ্রই এর সমাধান হয়ে যাবে। জেলা ও দায়রা জজ ড. জেবুন্নেসা এ আদালতের অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন। এ মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণের অপেক্ষায় আছে। সাক্ষীদের তলব করা হয়েছে। বাদী বেলায়েত হোসেন এখন সাক্ষ্য দেননি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *