সোনাগাজীতে বাল্য বিয়ে বন্ধ করলেন এসিল্যান্ড

নিজস্ব প্রতিনিধি :

সোনাগাজীতে প্রশাসনের তৎপরতায় বাল্য বিয়ে থেকে রক্ষা পেয়েছে নবম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রী (১৫)। গত সোমবার রাতে ওই ছাত্রীর বাল্যবিবাহ ঠেকিয়ে দিলেন উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) তাছলিমা শিরিন ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নার্গিস আক্তার। উপজেলার চর মজলিশপুর ইউনিয়নের চর বদরপুর এলাকায় এক বাড়িতে এঘটনা ঘটে।

উপজেলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয ও স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার চর মজলিশপুর ইউনিয়নের চর বদরপুর এলাকার নবম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীর সঙ্গে পাশ্ববর্তী এলাকার এক প্রবাসী যুবকের বিয়ের দিন ধার্য ছিল গতকাল মঙ্গলবার। বিয়ের কেনা-কাটাসহ সব আয়োজন শেষ করে সোমবার রাতে বর-কনের বাড়িতে গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান চলছিল। উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) তাছলিমা শিরিন গোপনে খবর পেয়ে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নার্গিস আক্তার ও স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহজাহানকে বিয়ে বাড়িতে পাঠিয়ে রাতেই ওই ছাত্রীর বাল্যবিবাহ বন্ধ করে দেন। পরে বরের বাড়িতেও বাল্যবিয়ে বন্ধের বিষয়ে খবর পাঠানো হয়।

উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নার্গিস আক্তার জানান, ওই ছাত্রীর বিয়ে বন্ধ করে ১৮বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত মেয়েকে বিয়ে দেবেনা মর্মে ছাত্রীর পরিবারের লোকজন ও আত্মীয়দের কাছ থেকে অঙ্গিকারনামা নেওয়া হয়েছে। এখন ওই ছাত্রী আবার বিদ্যালয়ে গিয়ে লেখাপড়া করবে। তিনি বলেন, বাল্যবিয়ে বন্ধ করার পরও গোপনে বিয়ে হয়েছে কি না গতকাল মঙ্গলবারও ইউপি সদস্যের মাধ্যমে খবর নেওয়া হয়েছে।

উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) তাছলিমা শিরিন বলেন, মেয়েরা সমাজের বোঝা নয়। তারাও এদেশের নাগরিক ও সম্পদ। অল্প বয়সে বিয়ে দিয়ে একটি মেয়ের জীবন নষ্ট করা যাবেনা। বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে সবাইকে সচেতন হতে হবে। যাতে করে সোনাগাজী উপজেলার কোথাও আর কোন ছাত্রী বাল্যবিবাহের শিকার না হয়। বাল্যবিবাহ, ইভটিজিং, মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে তাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *