সিন্দুরপুরে ছাত্রী অপহরনের চেষ্টা বখাটের

দাগনভুঞা প্রতিনিধি :

দাগনভুঞা উপজেলার সিন্দুরপুর ইউনিয়নের কোরবানপুরে স্কুলছাত্রীকে অপহরনের চেষ্টা করে এলাকার চিহৃিত এক বখাটে। গত ২১ মার্চ সকাল সাতটার দিকে কোরবানপুর রাস্তার মোড়ে এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনার বিবরনে জানা যায় সুজাতপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেনীর এক ছাত্রী ওইদিন সকালে প্রাইভেট পড়ার উদ্দেশ্যে বাড়ী থেকে বের হয়ে দরবেশের হাট যাওয়ার পথে কোরবানপুর রাস্তার মোড়ে এলে এলাকার চিহৃিত সন্ত্রাসী মুন্না ও তার আট-দশজন সঙ্গীসহ ছাত্রীর পথরোধ করে এবং জোরপুর্বক টেনে একটি সাদা রঙের মাইক্রোতে উঠাতে চায়। এসময় ভয়ে আতন্কিত ছাত্রীর শোরচিৎকারে লোকজন জড়ো হলে মুন্না ও তার সহযোগীরা পালিয়ে যায়।
ছাত্রীকে অপহরনকারীদের হাত থেকে উদ্ধার করতে ছুটে আসেন স্কুল শিক্ষক মোহাম্মদ আলী ও চা দোকানী দেলোয়ার হোসেনসহ অারো কয়েকজন।
পালিয়ে যাওয়া মুন্না ও তার সঙ্গীরা কিছুক্ষণ পর ফিরে এসে অপহরনে বাধাদানকারী দেলোয়ারের চা দোকানেও ভাঙচুর চালায়।
এ ঘটনায় ছাত্রীটির ভাই আশরাফুল ইসলাম বাদী হয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট একটি অভিযোগ দেন। ওই অভিযোগ পত্রে সুজাতপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ হোসেনকে মাধ্যম করলে তিনি
স্কুল ম্যানেজিং কমিটির মতামত নিয়ে উক্ত অভিযোগ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট ফরোয়ার্ড করেন।
দাগনভুঞা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলাম ভুঁইয়ার সাথে এ প্রতিবেদক যোগাযোগ করলে তিনি জানান। এ ধরনের একটি অভিযোগ তিনি পাওয়ার পরপরই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহন করতে নির্দেশ দিয়েছেন।ছাত্রী অপহরন চেষ্টাকারী সন্ত্রাসী মুন্না সিন্দুরপুর ইউনিয়নের মাছিমপুর গ্রামের কোজ বাড়ির কথিত ডা. আব্দুল মতিনের ছেলে।

মুন্নার ব্যাপারে তার এলাকায় খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায় ইতোপূর্বেও সে এধরনের কয়েকটি ঘটনা ঘটিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *