রাজশাহীর আম সোনাগাজীতে চাষ করে অভাবনীয় সাফল্য !

শেখ আবদুল হান্নান:

ল্যাংড়া, গোপালভোগ, মরিয়ম, খিরসা, মধুরানী , হিমসাগর কিংবা হাঁড়িভাঙা—এসব তো রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ এলাকার আম। তবে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মেজর সোলায়মান প্রমাণ করেছেন, যত্ন নিলে সোনাগাজীতেও এসব আম ফলানো সম্ভব। দেশি-বিদেশি মিলিয়ে প্রায় ৪২ জাতের আম আছে তাঁর বাগানে। বাগানে নানা জাতের আম লাগিয়েই ক্ষান্ত হননি তিনি, জাত উন্নয়নে প্রতিনিয়ত পরীক্ষা–নিরীক্ষাও করে চলেছেন।

১৯৯২ সালে ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার মুহুরি প্রকল্প এলাকায় প্রায় ৭০ একর জমিতে সোনাগাজী এগ্রো কমপ্লেক্স নামের সমন্বিত খামার প্রতিষ্ঠা করেন মো. সোলায়মান। খামারে মাছ চাষ ও গবাদিপশু পালনের পাশাপাশি কোনো ধরনের কীটনাশকের ব্যবহার ছাড়াই বিষমুক্ত উপায়ে ফলের বাগান করছেন তিনি। বাগানের দুই হাজার আমগাছে এবার আমের বাম্পার ফলন হয়েছে। এ ছাড়া বাগানে আমের পাশাপাশি কাঁঠাল, উন্নত জাতের কলা, পেঁপে, নারকেল, ড্রাগন ফল ও জামরুলের চাষও করেছেন তিনি।

সোনাগাজী উপজেলা সদর থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে মুহুরি প্রকল্পের পাশে মেজর সোলায়মানের খামারের অবস্থান। প্রকল্পের পাঁচ একর জায়গায় তিনি গড়ে তুলেছেন আমের বাগান। সম্প্রতি তাঁর খামার প্রকল্পে গিয়ে দেখা গেছে, মাছ চাষের জন্য খনন করা বিশাল পুকুরের দুই ধারে আমগাছের সারি। গাছে গাছে ঝুলছে নানা প্রজাতির আম। একেক জাতের আমের গড়ন একেক রকম। কোনোটি গোল আবার কোনোটি লম্বা।

মেজর সোলায়মান জানান, খামারে প্রায় দুই হাজার আমের গাছ আছে। এ বছর আরও ৫০০ চারা লাগাবেন তিনি । এ পর্যন্ত আম বাগানের পেছনে তাঁর খরচ হয়েছে ১৫ থেকে ১৬ লাখ টাকা। বিভিন্ন জায়গা থেকে ক্রেতারা তাঁর বাগান থেকে আম কিনে নিয়ে যান। ৬ বছর ধরে আম বিক্রি করছেন তিনি। এ মৌসুমে সব মিলিয়ে ২৫ টনের মতো আম বিক্রি হবে বলে তিনি আশা করছেন।

এসব আম খুবই মিষ্টি এবং সুস্বাদু। প্রতি কেজি ১০০ টাকা করে বিক্রি করছেন তিনি। এ ছাড়া এই বাগানে আলফানসো, রুবি, দোসারি ও রাঙ্গুয়াই পলমার ,তোতাপুরী নামের বিদেশি জাতের আমও ধরেছে বাগানে।

সেনাবাহিনীর সাবেক মেজর সোলায়মান বলেন, ‘এ অঞ্চলের মানুষ রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার আমের চাষ করেন না। অথচ বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে চাষ করলে এসব জাতের আম এখানে ভালো ফলবে। তার প্রমাণ আমার এই বাগান।’

তিনি আরও বলেন, তাঁর বাগানের আমে কোনো ধরনের কীটনাশক নেই। এ ছাড়া গাছে ইউরিয়া সার দেওয়ার পরিবর্তে জৈব সার ব্যবহার করেন বলে বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *