ভাগ্যের নির্মম পরিহাস।

মিরসরাই (চট্টগ্রাম)

প্রসব ব্যথা ওঠার পর বাড়ি থেকে হাসাপাতালের উদ্দেশে রওনা দিয়েছিলেন মিরসরাই উপজেলার সাহেরখালী ইউনিয়নের আলামিয়া চৌধুরী বাড়ির গৃহবধূ হাসিনা আক্তার। সাথে ছিলেন স্বামী মোহাম্মদ সোলেমান, শ্বশুর আবুল হোসেন ও শাশুড়ি হালিমা খাতুন।

একটি প্রাইভেট কারে করে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক হয়ে হাসপাতালের গেইটেও পৌঁছান তারা। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস। তখনই তাদের গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কে আইল্যান্ডের সাথে ধাক্কা খায়। এসময় হাসিনার শাশুড়ি হালিমা বেগম গুরুতর আহত হন। তাকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তিনি মারা যান। দুর্ঘটনায় আঘাত পাওয়া হাসিনাকে উদ্ধার করে হাসপাতালের নেয়ার পর তিনি মৃত সন্তান প্রসব করেন।

চিকিৎসকরা জানান, দুর্ঘটনায় আঘাত পেয়ে পেটের মধ্যে মারা গেছে ওই নবজাতক। দুর্ঘটনায় আরো আহত হয়েছেন হাসিনার স্বামী সোলেমান, শ্বশুর আবুল হোসেন ও গাড়ির চালক এমদাদ হোসেন। রোববার দিবাগত রাত ৪টার সময় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মিরসরাই সদরের মাতৃকা হাসপাতালের গেইটে এমন মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে।

সাহেরখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুল হায়দার চৌধুরী জানান, আমার ইউনিয়নের আলামিয়া চৌধুরী বাড়ির সোলেমানের স্ত্রীর প্রসব ব্যথা উঠলে তাকে মাতৃকা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে গাড়ি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এসময় সোলেমানের মা ও নবজতাকের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। যা খুব হৃদয়বিদারক। নিহতের লাশ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে বাড়িতে নেয়ার প্রস্তুতি চলছে।

মিরসরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইরুল ইসলাম বলেন, দুর্ঘটনায় কবলে পড়া যাত্রীদের উদ্ধার করে দ্রুত হাসপাতালে নেয়ার ব্যবস্থা করেছি। হাসপাতালে নেয়ার পথে একজন ও নবজাতক মারা যাওয়ার কথা স্বীকার করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *