পিতার সম্পদ দখল নিতে আপন ভাইয়ের বিরুদ্ধে মিথ্যে মামলা-সংবাদ সম্মেলনে ভাইয়ের অভিযোগ

প্রতিনিধি : ০৯ জানুয়ারী, ২০১৯
ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার পূর্ব চন্দ্রপুর মডেল ইউনিয়নের আমুভূঞারহাটে পিতার সম্পদ কুক্ষিগত করতে আপন বড় ভাইকে একের পর এক মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানী ও হত্যা চেষ্টা এবং বাড়ি থেকে উচ্ছেদ প্রচেষ্টার অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন মাঈন উদ্দিন। বুধবার দুপুরে আমুভূঞার হাট দাখিল মাদ্রাসা মাঠে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও বিভিন্ন শ্রেণি পেশার বিপুল সংখ্যক লোকজনের উপস্থিতিতে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই অভিযোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মাঈন উদ্দিন অভিযোগ করেন, ২০১৭ সালে তার পিতা মাস্টার আবদুর রহমান অসুস্থ হলে তাকে শারিরিক ভাবে অজ্ঞান করে ছোট ভাই কামাল উদ্দিন ভাই-বোনদের বঞ্চিত করে সব সম্পত্তি দাগনভূঞা সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে গত ২৪/৪/২০১৭ ইং তারিখে ২০৭৬নং হেবা দলিল করে ১৩৪.৫০ শতাংশ ও ১৬/০৪/২০১৭ ইং তারিখে ১৯২৮ নং হেবা দলিল করে ১২১.৫০ শতাংশসহ মোট ২৫৬ শতাংশ জমি জালিয়াতি করে রেজিষ্ট্রি করে নেয়। বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয় ভাবে মিমাংসার জন্য একাধিক বৈঠক বসে এবং কোন সমাধান না হওয়ায় পল্লী আদালতে অভিযোগ দেয়। কিন্তু কামাল উদ্দিন এসবের তোয়াক্কা না করে দলিল রেজিষ্ট্রির পর থেকে গন্যমান্য ব্যক্তিদের নিকট ধরা না দিয়ে উল্টো ভাই মাঈন উদ্দিনসহ সমাজপতিদের আসামী করে একের এক পাঁচটি মিথ্যা ও হয়রানীমূলক মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে পিতা আবদুর রহমান অমানবিকতা বুঝতে পেরে উল্লেখিত হেবা দলিলগুলো বাতিল করতে দাগনভূঞার সাব-রেজিষ্টারের নিকট একটি লিখিত আবেদন করেন। তবে কামাল কৌশলে পরবর্তীতে পিতাকে অজ্ঞাত ভয়ভীতি দেখিয়ে তার কব্জায় নিয়ে নেয়। এনিয়ে দাগনভূঞা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, থানার ওসি ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান অমানবিক ও জালিয়াতির বিষয়টি সুরাহার জন্য বাদী পক্ষের আইনজীবি আকরামুজ্জানের সাথে বৈঠক করলেও এখনো পর্যন্ত কোন ফল হয়নি। এদিকে গত ৬ জানুয়ারী কামাল ফেনীতে একটি সংবাদ সম্মেলন করে মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য পরিবেশন করে যা দিয়ে বিভিন্ন পত্রিকা মনগড়া সংবাদ পরিবেশন করে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পূর্ব চন্দ্রপুর মডেল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাসুদ রায়হান, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আবদুল আউয়াল, আমুভূঞারহাট বাজার পরিচালনা কমিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম, সমাজসেবক আহসান উল্যাহ বাবুল, ভুক্তভোগী মাঈন উদ্দিনের স্ত্রী বিবি কুলসুম রোমানা, ছেলে মেহেরাব হাসান মিনহাজ, মেয়ে মেরিন ইফাত মিথিলাসহ বাড়ি ও প্রতিবেশী, সমাজের গন্যমান্য বিপুল সংখ্যক নারী-পুরুষ।

ভিটা মাটি হারা মাঈন উদ্দিন কান্নায় জড়িত কন্ঠে বলেন, আমার জন্মদাতা পিতাকে ফুসলিয়ে সব সম্পত্তি কুক্ষিগত করতে ছোট ভাই কামাল উদ্দিন জালিয়াতির মাধ্যমে তার নামে হেবা দলিল করেছে। বর্তমান আমি ও আমার দুই বোন মাথাগোঁজার ঠাঁয় সহ শেষ বিদায়ের কবরস্থানের জায়গা থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। তাদের মিথ্যা মামলা ও হয়রানী, প্রাণনাশের হুমকি এবং সম্পদ আতœসাতে পরিবার পরিজন নিয়ে নি:স্ব হয়ে গেছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *