দাগনভুঞায় যৌতুকের বলি কাজল > অভিযোগে মামলা

ফেনী প্রতিনিধি, ২৯ মার্চ ২০১৮
ফেনীর দাগনভুঞায় যৌতূকের চাহিদা পুরনে ব্যর্থ হয়ে গৃহবধূ কাজলকে বিষ প্রয়োগ করে হত্যার অভিযোগে ফেনী আদালতে মামলা দায়ের। এ ঘটনায় নিহতের বড় ভাই মমিনুল হক ২৮ মার্চ বুধবার রাতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে হত্যা মামলা দায়ের করে।
মামলা আসামীরা হলো, স্বামী সফিউল্যাহ, ননদ নাছিমা, দেবর সাহাবউদ্দিন, শ্বশুর জাহাঙ্গীর আলম, শ্বাশুড়ী ছবুরা খাতুন।

বাদীর আইনজীবী মো: মাঈন উদ্দিন জানান, নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতের বিচারক অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আসাদুজ্জামান খান মামলাটি আমলে নিয়ে পিবিআই কে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।
২০১৩ সালের মার্চে পূর্বচন্দ্রপুর ইউনিয়নের সাপুয়া গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে সফিউল্লাহর সাথে বিয়ে হয় জায়লস্কর ইউনিয়নের ছোট আহম্মদপুর গ্রামের মৃত আবদুর রবের মেয়ে কাজলের।

কাজলের ভাই জানান, বিয়ের পর থেকে বিভিন্ন সময় স্বামী ও শশুর পরিবারের দাবীকৃত আসবাবপত্র দিতে না পারায় কাজলকে শারিরীকভাবে ও মানসিক নির্যাতন করত। এরপর দুই ধাপে ১লাখ ৫০ হাজার টাকা ও স্বর্ণালংকার দেয়া হয়। গত ক’মাস আগে আলমিরা আর ফার্নিচারের দাবী পূরণ করতে পারিনি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে গত ২১ মার্চ স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন মিলে কাজলের মুখে বিষ ঢেলে দেয়। এরপর বিষ পান করেছে বলে অপপ্রচার করে । পরে গৃহবধূকে মুমূর্ষু অবস্থায় ফেনী আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কর্তব্যরত ডাক্তার পরদিন কাজলকে ঢাকায় প্রেরণের নির্দেশ দিলে পথিমধ্যে কুমিল্লায় ২২ মার্চ কাজলের মৃত্যু হয়। নিহতের ৪ বছর বয়সের এক শিশু সন্তান রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *