কমেছে যানজট : কমেনি দূর্ভোগ

ফেনী প্রতিনিধি, ১৩ মে ২০১৮

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ফেনীর ২৭ কিমি অংশে বিগত এক মাস যাবৎ যানজট লেগেই ছিল। গত বৃহ¯প্রতিবার (১০ মে) বিকেল থেকে তীব্র যানজট শুরু হয়, তা কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থেকে চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড পর্যন্ত প্রায় ১০০১ কিমি সড়কে বিস্তার লাভ করে। এতে যাত্রী ও চালকের দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করে।

রবিবার (১৩ মে) দুপুরে মহাসড়কের ফেনীর মহিপাল ও ফতেহপুর এলাকায় সরেজমিন গিয়ে দেখা যায় যানজট কিছুটা কমেছে। মহাসড়কের অধিকাংশ যানবাহন জেলার অভ্যন্তরীণ সড়কসহ বিভিন্ন সড়ক দিয়ে পারাপারের ব্যবস্থা করায় মহাসড়কে যানবাহনের ছাপ কিছুটা কমেছে ।

যাত্রী এবং গাড়ির চালকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মহাসড়কে যানজটের মূল কারণ ফেনীর ফতেহপুর এলাকার রেল ক্রসিংয়ে উড়াল সেতু (ওভারপাস) নির্মাণ কাজ।

জানা যায়, একদিকে বিলম্বিত নির্মাাণ, অপরদিকে মহাসড়কে ফতেহপুর ওভারপাস নির্মাণকালীন সময়ের জন্য ডাইভারশন অর্থাৎ বিকল্প সড়ক নির্মাণ না করাই যানজটের কারণ। মহাসড়কে মহিপাল ফাইওভারের ৬ লেইন ও দুই পার্শ্বে দুই লাইন করে চার লেনসহ ১০ লেনের সকল
যানবাহন ফতেহপুর ফাইওভারে এসে এক লাইন দিয়ে পার হচ্ছিল। এতে প্রতিদিন ঘণ্টার পর ঘণ্টা যানজটে পড়ে দুর্ভোগ পোহাতে হয় ।

যানজটে আটকা পড়ে অ্যাম্বুলেন্সের রোগীদেরও ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে । সড়কপথে ঢাকা-চট্টগ্রামের ৫-৬ ঘন্টার পথ ৩০-৩৫ ঘন্টায়ও পার হতে পারছেনা।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, যানজট নিরসনে মহাসড়কের এ অংশে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের অধীনে ২০১২ সালের ফেব্রæয়ারিতে শিপু বিপিএল নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান উড়াল
সেতুর (ওভারপাস) নির্মাণ কাজ শুরু করে । কার্যাদেশ পাওয়ার তিন বছরে মাত্র ৩০% শতাংশ কাজও শেষ করতে পারেনি তারা। ঠিকাদারের গাফেলতি ও স্থানীয় চাঁদাবাজদের কারণে এক পর্যায়ে ওই ঠিকাদার কাজ পেলে পালিয়ে যায়। পরে সেনাবাহিনীর তত্বাবধানে আল আমিন কনস্ট্রাকশন নামে আরেকটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে কাজটি দেওয়া হয়েছে। গত বছরের মার্চ থেকে সেনাবাহিনীর তত্বাবধানে শুরু হওয়া নির্মাণ কাজের বেশ অগ্রগতিও হয়েছে। তবে দীর্ঘ ছয় বছরেও ফতেহপুর রেল ক্রসিংয়ের এ উড়াল সেতুর (ওভারপাস) নির্মাণ কাজ শেষ হয়নি।

যানজট থেকে রেহাই পেতে বাস-ট্রাক ও ভারী ভারী কাভার্ডভ্যানগুলো মহাসড়ক ছেড়ে ফেনী শহর ও জেলা পর্যায়ের বিভিন্ন সড়কে ঢুকে পড়তে বাধ্য হয়। এতে ফেনীর শহর ও শহরতলির সড়কগুলোও অল্প সময়ে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

গত ৬ এপ্রিল ওভারপাসটির নির্মাণ কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করতে এসে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীদের জানায়, চলতি বছরের ১৫ মের মধ্যে ওভারপাসের একপাশের কাজ শেষ হলে ওই অংশ খুলে দেওয়া হবে। জুলাই মাসের মধ্যে পুরোপুরি কাজ শেষ হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

আন্তঃ জেলা বাস মালিক সমিতির ফেনী জেলা সদস্য সচিব ও স্টার লাইন পরিবহনের পরিচালক জাফর উদ্দিন জানান, তীব্র যানজটে থেমে থেমে চলছে যানবাহন। এ সুযোগে মহাসড়কে ছিনতাই-ডাকাতির ঘটছে। যাত্রীভোগান্তি ও চালকদের হয়রানীসহ বিভিন্ন দাবীতে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে আন্তঃ জেলা বাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক পরিবহণ ইউনিয়ন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *